২ বউকে নিয়ে ভরত কলের বাস্তব জীবনের গল্প হার মানাবে সিনেমাকেও

একনজরে দেখলেই তাকে মনে হবে তিনি যেন, কোন ভারতীয় ব্যক্তি নয়। তিনি যেন কোন ইংরেজ বংশোদ্ভূত ব্যক্তি। জীবনের সায়ান্নে এসেও তার সৌন্দর্য যেন সকলের নজর কাড়ে।

ফর্শা লাল টুকটুকে এবং লম্বা চুল নিয়ে আজ থেকে বহু বছর আগে সকলের মন জয় করে নিয়েছিলেন ভরত কল। জীবনে ৫৫ টির বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি।

নব্বইয়ের দশকে তাকে একবার দেখার জন্য যে রকম মানুষ উতলা হয়ে থাকতো, আজও তার অন্যথা হয়নি।

ব্যক্তিগত জীবনেও ভীষণভাবে রিক্স নিতে পছন্দ করতেন তিনি। কখনো কাজের জন্য ছুটে গেছেন তিনি মুম্বাইতে, কখনো আবার ফিরে এসেছেন কলকাতাতে।

অরুন্ধতীর লাইন প্রডিউসার এর হাত ধরে কাজ করা শুরু এই অভিনেতার,তারপর তিনি করেছিলেন কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় এর খাদ সিনেমাতে অভিনয়।

তারপর অবশ্য তাকে ফিরে তাকাতে হয়নি আর। একের পর এক অসাধারণ সিনেমাতে অভিনয় করে সকলের মন জয় করে নিয়েছেন তিনি।

জাতিস্মর থেকে যুলফিকর সব স্থানে দেখা গিয়েছিল তাকে। বাংলা ধারাবাহিকেও তার অবদান কম নয়। চিরকালই অন্য চরিত্র বেশি বেছে নিতে চেয়েছেন তিনি।

তথাকথিত বাবা অথবা জ্যাঠার চরিত্রে কখনো অভিনয় করেননি তিনি। তার চরিত্রের মধ্যে চিরকালই ছিল নতুনত্ব।

ব্যক্তিগত জীবনেও তার এসেছে অনেক পরিবর্তন। তার প্রথম স্ত্রী অভিনেত্রী তনুশ্রী দাস, যার সঙ্গে বহু ধারাবাহিকে অভিনয় করেছেন তিনি।

বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে গেলেও সেই সম্পর্ক বেশি দিন টেকেনি।বিবাহ বিচ্ছেদের পর তিনি ফিরে যান মুম্বাইতে। কিছুদিন একা থাকার পর সায়ন্তনী ঘোষ এর সঙ্গে লিভ ইন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন।

কিন্তু লিভ ইন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার পরেও খুব একটা খুশি ছিলেন না তিনি। শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন অভিনেতা ভরত কল।

ক্রনিক মাইলয়েড লিউকেমিয়া ধরা পড়ে তার। চিকিৎসা করাতে ফিরে আসেন কলকাতাতে। রাজযোটক থেকে শুরু করে আপন জনের মত মেগা সিরিয়ালে অভিনয় করতে দেখা গেছে তাকে।

সেখানেই সত্তিকারের আপনজন পেয়ে যান তিনি। বিয়ে করে নেন জয়শ্রী কে। আজ একটি কন্যা সন্তান নিয়ে তাদের সুখের সংসার।

তবে যতই বিবাদ আসুক না কেন, অন স্ক্রিনে কিন্তু পূর্বে দুই স্ত্রীকে নিয়ে অভিনয় করতে কোন আপত্তি ছিল না অভিনেতার।

স্টার জলসায় খরকুটো এবং মোহরের মত বিখ্যাত জনপ্রিয় সিরিয়ালে একই সঙ্গে অভিনয় করছেন ভরত কল এবং তার প্রাক্তন ও বর্তমান স্ত্রী।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*